সামনে ভোট, আজ থেকে বন্ধ হচ্ছে এই কলিং সার্ভিস: Jio, Airtel ও Vodafone ইউজাররা সমঝে চলুন

ভোটের মুখে সরকার নিয়েছে একটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত, যা বর্তমানে সকল স্মার্টফোন ইউজারের মোবাইল কল ফরওয়ার্ডিং সার্ভিস ব্যবহারের পরিবর্তন আনবে। এখানে গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনা করতে হবে, কারণ আগামী ১৫ই এপ্রিল ২০২৪ থেকে সারা দেশে USSD ভিত্তিক কল ফরওয়ার্ডিং সুবিধা বন্ধ হবে। এ সুবিধা ব্যবহার করে ইচ্ছেমতো কোন নম্বরে ইনকামিং কলগুলি ডাইভার্ট করা যেত।

মোবাইল কলিংয়ের ক্ষেত্রে, টেলিকম অপারেটর এবং হ্যান্ডসেট ব্র্যান্ডগুলি মিলিয়ে বিভিন্ন সুবিধা প্রদান করে। এর মধ্যে একটি সুবিধা হল কল ফরওয়ার্ডিং (call forwarding) যা ইউজারদের কল রিসিভ করা নম্বর থেকে অন্য নম্বরে ডাইভার্ট করে দেওয়ার সুযোগ প্রদান করে। এই সুবিধা সহজে ব্যবহার করা যায় এবং কলগুলি মিস না হওয়ার সুরক্ষা প্রদান করে।

তাই, যারা পূর্বে কল ফরওয়ার্ডিং সার্ভিস ব্যবহার করতেন, তাদের এখন এটি বন্ধ হচ্ছে সে সম্পর্কে তাদের বুঝতে হবে। আশা করি এই পরিবর্তনের সাথে সমস্ত স্মার্টফোন ইউজার সাহায্য করবে এবং সঠিক নম্বরে কলগুলি পাঠানোর জন্য তাদের জন্য অধিক সুবিধা তৈরি হবে।

কেন্দ্রীয় টেলিকম বিভাগ বা ডিপার্টমেন্ট অফ টেলিকমিউনিকেশন (DoT) ইতিমধ্যে রিলায়েন্স জিও, ভারতী এয়ারটেল, এবং ভোডাফোন আইডিয়া এবং অন্যান্য টেলিকম কোম্পানিগুলিকে *401# জাতীয় ইউএসএসডি কোড ভিত্তিক কল ফরওয়ার্ডিং ফিচার স্থগিত করতে নির্দেশ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়েছে। এই ফিচার ফরওয়ার্ডিং সেবা বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বাজারে রায় বিস্তৃত ব্যবহারের প্রয়োজন দেখানো মধ্যমে। ডিপার্টমেন্ট অফ টেলিকমিউনিকেশনের এই সিদ্ধান্ত থেকে আশা করা হচ্ছে টেলিকম সেবার গুণগত নিরাপত্তা ও গ্রাহকের সুরক্ষা বৃদ্ধি পাবে।

এই নতুন নির্দেশিকা ডিপার্টমেন্ট অফ টেলিকমিউনিকেশনের মাধ্যমে সারা দেশে প্রযুক্তিগত সুরক্ষা ও নিরাপত্তা বৃদ্ধি করার চেষ্টা করছে। এটি গ্রাহকদের ডাটা ও ব্যক্তিগত তথ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ হিসেবে বিবেচিত হয়েছে। এছাড়া, এই প্রতিষেধক ফরওয়ার্ডিং ফিচার সেবা স্থগিত করে গ্রাহকদের নিরাপত্তা নিয়ে অধিক সচেতনতা তৈরি করতে সাহায্য করবে।

ডিওটি কেন USSD ফরওয়ার্ডিং সার্ভিস বন্ধ করছে?

টেলিকমিউনিকেশন বিভাগের উদ্দেশ্য ছিল দেশীয় মোবাইল ইউজারদের জন্য কোড-বেসড কলিং সার্ভিস চালু করা। এই সার্ভিস প্রধানভাবে সুবিধা ও সহজতা প্রদান করতে তৈরি করা হয়েছিল। কিন্তু জালিয়াতির শিকার হওয়ার ঝুঁকির কারণে সেই সুবিধা সাধারণ মানুষদের জন্য প্রতারণার হাতিয়ার হয়ে গেছিল। এতে বিশ্বাসঘাত হওয়ার কারণে পরিষেবাটির চালানো বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সবাই কেবল ইউএসএসডি কল ফরওয়ার্ডিং সার্ভিসের বন্ধ হবে বলে মনে করতে পারে, কিন্তু ডিওটি এ ধরনের সার্ভিসের সাথে সম্পূর্ণ সামঞ্জস্য তৈরি করতে ব্যাখ্যা দেয়নি। তারা জানান, ইউজারদের জন্য অন্যান্য বিকল্প বিবেচনা করা উচিত। এ সম্পর্কে সংস্থাগুলিকে পরামর্শ দেয়া হয়েছে যে সেই অন্যান্য বিকল্প নির্বাচন করতে হবে। সাথে সাথে, মোবাইল ইউজাররা ফোনের ডায়লার সেটিং মেনু থেকে ইচ্ছেমতো কল ফরওয়ার্ডিং অপশন নির্বাচন করতে পারবেন।

USSD কোড কি?

ইউএসএসডি হল একটি প্রতিষ্ঠিত মোবাইল শর্ট কোড, যা ফোন ব্যবহারকারীদের অনেক বিভিন্ন প্রয়োজনীয় সেবা প্রদান করে। এই ধরনের কোড আমাদের অধিকাংশ সময় স্টার (*) সাইন দিয়ে শুরু হয় এবং হ্যাশ (#) সাইন দিয়ে শেষ হয়, উদাহরণ স্বরূপ একটি কোড হতে পারে *401#। এই কোডগুলির মাধ্যমে ফোনের ব্যালেন্স চেক করা, মেলে কলব্যাক পরিষেবা, ভ্যালিডিটি চেক এবং ডিভাইসের আইএমইআই (IMEI) নম্বর জানা যায়। এছাড়া, এই উপায়ে পুরানো থেকে অনেক সময় সিম কার্ড থেকে অপ্রয়োজনীয় কলগুলি বাদ দেওয়া যেতে পারে।

এছাড়া, ইউএসএসডি কোড ডায়াল করে ফোনে এসে কলটি অন্য নম্বরে ফরওয়ার্ড করা যেতে পারে, যা ব্যক্তিগত ও ব্যবসায়িক স্বার্থে ব্যবহার করা যেতে পারে। এই উপায়ে সহজেই কলগুলি নিয়ন্ত্রিত করা যেতে এবং প্রয়োজনীয় সেবা প্রাপ্ত করা যেতে সাহায্য হতে পারে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

সামনে ভোট সার্ভিস জালিয়াতির কারণে ব্যবহার করা হয়েছে এবং সাধারণ মানুষদেরকে প্রতারণা হয়েছিল, তাই সার্ভিসটি বন্ধ করা হয়েছে।

Jio, Airtel, ও Vodafone ইউজাররা কল ফরওয়ার্ডিং বা অন্যান্য বিকল্প বেছে নিতে পারেন যাতে তাদের কল পাবেন এবং যারা চান তাদের কল অন্য নাম্বারে পাঠাতে পারবেন।

আপনি ফোনের ডায়লার মেনু থেকে কল ফরওয়ার্ডিং সেটিং বাদ দিতে পারেন। আপনার প্রফাইলে যেকোনো কল ফরওয়ার্ডিং সেট অফ করে দিতে হবে।

এখনো কোনো নিশ্চিত তারিখ নেই। তবে, সরকার এবং টেলিকম কোম্পানিগুলি জন্য অন্যান্য বিকল্প তৈরি করতে অনুরোধ করেছে।

উপসংহার

সামনে ভোটের প্রস্তুতি চলছে এবং আজ থেকে এই কলিং সার্ভিস বন্ধ হচ্ছে। Jio, Airtel এবং Vodafone ইউজারদের অনুরোধ করা হচ্ছে যে, তারা এই পরিস্থিতিতে সমঝকে ধরে নিতে হবেন। অবশ্যই সরকারী নির্দেশিকা ও প্রেরণাধীন উপায়ে ভোট অধিকার ব্যবহার করতে হবে।

Leave a Comment