Samsung is taking special initiatives in the field of 6G network technology

Jacksons

Samsung

স্যামসাং ইলেকট্রনিক্স সহ তাদের এসআরএ সংস্থা প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে যৌথ উদ্যোগে ‘নেক্সটজি ইনশিয়েটিভ কর্পোরেট অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম’ চালানোর ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে তারা আগামী প্রজন্মের টেকনোলজি বিশেষজ্ঞদের সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলার লক্ষ্যে উন্নত প্রশিক্ষণ প্রদান করতে চান। এই প্রযুক্তিগত সম্প্রদায়ের সঙ্গে তাদের যোগাযোগ সুবিধা ও সহযোগিতা বাড়ানোর লক্ষ্যে এই অভিনব প্রকল্পে তাদের অংশগ্রহণ করা হবে।

এই ইনিশিয়েটিভের মাধ্যমে স্যামসাং ইলেক্ট্রনিক্স তাদের পণ্য ও সেবার গুনগত মান আরও উন্নত করার লক্ষ্যে নতুন উদ্যোগ নিতে চলেছে। প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে এই উদ্যোগে তাদের পরিকল্পনা হচ্ছে আমলে প্রত্যাশিত এবং বিশেষজ্ঞ দক্ষতার সাথে মিলে সেই নিশ্চিততা এনে নিতে। এই সম্প্রদায়ের প্রশিক্ষণ ও সহযোগিতার মাধ্যমে সম্প্রতির সময়ে সামগ্রিকভাবে সার্থক প্রগতি করার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রযুক্তি মানচিত্রে স্থান করে রয়েছে Samsung, যা এখন ইতিমধ্যে 6G নেটওয়ার্ক প্রযুক্তিতে মনোনিবেশ করেছে। প্রযুক্তিতে এগিয়ে যেতে চাইছে, সেই লক্ষ্যে স্যামসাং এখন আমেরিকার প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সহযোগিতা স্থাপন করেছে। এই অবস্থানে, সামাজিক সাথে পাশাপাশি গবেষণা ও উন্নয়ন সংস্থা, স্যামসাং রিসার্চ আমেরিকা (SRA) এই সহযোগিতা বাস্তবায়ন করবে।

স্যামসাং ইলেকট্রনিক্স এও সাথে সম্পর্কিতভাবে জানানো হয়েছে যে, তাদের এসআরএ সংস্থা প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সম্প্রতি ‘নেক্সটজি ইনশিয়েটিভ কর্পোরেট অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম’ শুরু করেছে। এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে, তারা 6G নেটওয়ার্ক প্রযুক্তিতে গবেষণা ও উন্নয়নে ব্যাপক কাজ করবেন। এই উদ্যোগের মাধ্যমে আগামী প্রযুক্তিগত আয়োজনে সম্ভাবনা প্রবর্তন করা হবে।

এই মূল্যবান সম্প্রসারণের সাথে সংস্থাটি নিজেদের প্রযুক্তি সংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তাদের সাথে নিজেদের প্রযুক্তিগত সহযোগিতা বাড়ানোর চেষ্টা করছে। এই উদ্যোগের মাধ্যমে, Samsung সম্প্রতি প্রযুক্তিগত উন্নয়নে পর্যাপ্ত গতি লাভ করেছে এবং আগামীতে এটি প্রযুক্তিগত মেশিনারির সাথে সংযুক্ত হয়ে উন্নত সমাজে অবদান রাখতে চায়।

সাল পার করা এই প্রোগ্রামে, বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড অ্যাপ্লায়েড সায়েন্স বিভাগে বিভিন্ন ক্ষেত্রে নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতে উল্লেখযোগ্য কাজ করেছে। এই প্রযুক্তির মধ্যে ক্লাউড এবং এজ নেটওয়ার্ক, ইন্টেলিজেন্স সেন্সিং এবং নেটওয়ার্ক রেজিলিয়েন্স সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়েছে। এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে ছাত্রদের প্রযুক্তিগত দক্ষতা বৃদ্ধির সুযোগ প্রদান করা হয়েছে এবং তারা এই নতুন প্রযুক্তিগুলির সঙ্গে পরিচিতি অর্জন করতে পারে।

প্রোগ্রামের চালনা দেখায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিং অধ্যাপকদের এবং শিক্ষকদের দৃষ্টিতে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ একটি মানবসম্প্রদায়ি অবলম্বন যা প্রযুক্তির অনুশীলনের পাশাপাশি ছাত্রদের বিভিন্ন প্রকল্পে অংশগ্রহণ করতে উৎসাহিত করেছে। এই প্রযুক্তিগুলির ব্যবহার করে ছাত্রদের বিজ্ঞানের বিভিন্ন বিষয়ে সামগ্রিক বুদ্ধিমত্তা বৃদ্ধি করা হয়েছে, এটি অন্যদের সহযোগিতায় বিজ্ঞানের সাথে নতুন আলোচনার পথ সৃষ্টি করেছে।

এসআরএ কর্পোরেট অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামে এরিকসন, ইন্টেল, মিডিয়াটেক, নোকিয়া বেল ল্যাবস, কোয়ালকম টেকনোলজিস এবং ভোডাফোন সহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলির সাথেও কাজ করবে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

স্যামসাং 6G নেটওয়ার্কে এনার্জি স্থায়ীকরণ প্রযুক্তির মাধ্যমে ব্যাটারি লাইফ বাড়ানোর প্রযুক্তিগুলি পরিকল্পনা করছে, যা প্রযুক্তিগত সুযোগ উন্নত করবে এবং সময়ের সাথে যাচাই করতে সাহায্য করবে।

স্যামসাং এর 6G প্রোগ্রাম উদ্যোক্তাদের ও আইওটি সংস্থাগুলির সাথে সম্পর্ক নির্ধারণ করার জন্য প্লাটফর্ম সরবরাহ করবে, যা প্রযুক্তিগত সম্প্রদায়ের সমন্বয়ে পরিকল্পনা তৈরি করতে সাহায্য করবে।

স্যামসাং এর 6G নেটওয়ার্ক প্রযুক্তির প্রয়োগ প্রায়ই বাংলাদেশের মতো দেশে সংস্থাগুলি গবেষণা এবং পরীক্ষণে প্রথমে অনুমোদন পাবে।

6G প্রযুক্তির মধ্যে কাজ করার জন্য, ছাত্রদের তত্ত্বাবধায়ক, প্রযুক্তিবিদ, নেটওয়ার্ক পরিচালক এবং সিকিউরিটি বিশেষজ্ঞদের মতো পেশাদার যোগ্যতা প্রয়োজন।

উপসংহার

6G নেটওয়ার্ক প্রযুক্তি নিয়ে স্যামসাংের বিশেষ উদ্যোগ একটি সুদৃঢ় প্রতিশ্রুতি ঘোষণা করে, যা আগামী প্রযুক্তিগত যুগের সঙ্গে মিলিয়ে প্রযুক্তিগত সম্প্রদায়ে নতুন দিক প্রদর্শন করতে পারে। এই উদ্যোগের মাধ্যমে স্যামসাং প্রযুক্তিগত উন্নতির পথে এগিয়ে যাচ্ছে এবং প্রযুক্তির সুযোগ ও সার্ভিস উন্নতির মাধ্যমে আমাদের দৈনন্দিন জীবন উন্নত করতে সহায়ক হতে পারে।

এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে স্যামসাং স্থিতি গ্রহণ করছে যে আগামী প্রযুক্তিগত পৃথিবীতে সক্ষম হওয়ার জন্য উচ্চ স্তরের প্রযুক্তিগত উন্নতি এবং সমাজের জন্য সহজলভ্য করা হওয়ার অনুরোধ করছে। এই সাথে, স্যামসাংের প্রযুক্তিগত উন্নতি এবং নতুন প্রযুক্তিগুলি প্রয়োগ করা হচ্ছে যাতে আমরা সমস্ত সমস্যা সমাধান করতে সক্ষম হতে পারি এবং ভবিষ্যতের জন্য একটি উন্নত ও সুরক্ষিত পরিবেশ তৈরি করতে পারি।

Leave a Comment