আপনি কি ৮৪ দিনের রিচার্জ প্ল্যান চান? Jio এবং Airtel দুটি কার্যকর সুবিধা প্রদান করে তা দেখে নিতে পারেন।

Jacksons

Jio এবং Airtel

বর্তমানে ভারতে Airtel এবং Jio-র ব্যবহারকারীর সংখ্যা সব থেকে বেশি। এই দুটি সংস্থা ব্যবহারকারীদের আকৃষ্ট করার জন্য দুর্দান্ত রিচার্জ প্ল্যান অফার করে থাকে। তাদের এই প্ল্যানগুলোর মধ্যে একটি হলো জিও এবং এয়ারটেলের যৌথ প্ল্যান, যা ৭১৯ টাকায় উপলব্ধ এবং ৮৪ দিন সম্প্রদায়। এই প্রতিষ্ঠানগুলো একে অপরের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য সহযোগিতা করে এবং অবশ্যই একে অপরের সাথে সম্প্রদায়ের অফারগুলোও পরিচয় করায়।

এই সম্প্রদায়ের মধ্যে প্ল্যানগুলোর দাম এবং সুবিধায় কিছু পার্থক্য রয়েছে। এই নতুন প্ল্যান অফারের মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের উচ্চ স্পীড ইন্টারনেট, কল, এসএমএস সুবিধা উপভোগ করতে সক্ষম হতে পারে। এছাড়াও, এই প্ল্যানের মাধ্যমে দুটি টেলিকম জনপ্রিয়তা অধিক বাড়াতে সহায়ক হতে পারে, যাতে এই সংস্থা তাদের বাজার ভাগস্থাপন বজায় রাখতে পারে।

Airtel-এর ৭১৯ টাকার পরিকল্পনা

এয়ারটেলের ৭১৯ টাকার প্ল্যানের সাথে ৮৪ দিনের ভ্যালিডিটি সুবিধা পেতে পারেন। এই প্ল্যানে সহজেই যোগ হয়ে থাকে আনলিমিটেড কলিং, প্রতিদিন ১.৫ জিবি ডেটা, এবং দৈনিক ১০০ টি এসএমএসের বেশি ব্যবহারের সুযোগ। এছাড়াও, এই প্ল্যানে অতিরিক্ত সুবিধা হিসেবে আপনি হ্যালো টিউনস, অ্যাপোলো ২৪×৭ সেবা এবং উইঙ্ক মিউজিকের সাবস্ক্রিপশন নিতে পারবেন সম্পূর্ণ বিনামূল্যে। এই অফারটি মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের জন্য একটি অপরাজিত অফার হিসাবে গণ্য হতে পারে।

এটি স্পেশালি তাদের জন্য উপলব্ধ যারা প্রায়শই মোবাইল ডেটা এবং কলিং সুবিধার জন্য নির্ভরশীল। এই প্ল্যানের মাধ্যমে তারা দৈনিক সময় প্রায় অসীম কলিং ও ডেটা সুবিধা উপভোগ করতে পারেন, যা সহজেই তাদের মোবাইল ব্যবহারের অভ্যন্তরীণ দরজা খোলে দেয়। এই প্ল্যানের মাধ্যমে তারা সহজেই সাম্প্রতিক মোবাইল টেকনোলজির সুবিধা পাওয়ার অভ্যাস করতে পারেন এবং তাদের জীবনযাপন অনুযায়ী এই প্ল্যানটি নির্বাচন করতে পারেন।

Jio-এর ৭১৯ টাকার পরিকল্পনা।

এই জিও পরিকল্পনার ব্যবহারকারীদের প্রতিদিন ৮৪ দিনের জন্য ২ জিবি ডেটা ব্যবহারের সুযোগ উপলব্ধ থাকবে। এতে যোগ করে, তাদের জন্য ১০০টি এসএমএস এবং আনলিমিটেড ভয়েস কলিং সুবিধা প্রদান করা হয়েছে। এই প্যাকেজে অন্যান্য উপকারিতা সম্পর্কে কথা বললে, এটি জিও সিকিউরিটি, জিও সিনেমা এবং জিও ক্লাউডের মতো অ্যাপগুলি মুলতুবি পাচ্ছেন বিনামূল্যে।

এই অফারের সাথে সম্পর্কিত বিশেষ উল্লেখযোগ্য হলো যে, এই পরিকল্পনা ব্যবহারকারীদের দ্রুত ইন্টারনেট অ্যাক্সেস এবং বিভিন্ন অ্যাপস সহজেই অ্যাক্সেস করার সুযোগ উপলব্ধ করায়। তারা অপরাধের বিরুদ্ধে উচ্চ স্তরের সুরক্ষা পেতে পারেন এবং আলাদা আলাদা সেবা প্রাপ্তির মাধ্যমে তাদের স্মার্টফোনের উপযুক্তি প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যবহার করতে পারেন।

দুটি প্ল্যানের মধ্যে কোনটি আপনার জন্য সেরা

এই রিচার্জ প্ল্যান দুটি তুলনামূলকভাবে বিচার করলে, প্রথম প্রধান পার্থক্য হল ডেটার পরিমাণে। জিও প্রতিদিন ২ জিবি ডেটা অফার করে, যেখানে এয়ারটেল প্রতিদিন ১.৫ জিবি ডেটা অফার করে। অর্থাৎ, জিও গ্রাহকেরা ৭১৯ টাকার প্ল্যানে ৪২ জিবি অতিরিক্ত ডেটা উপভোগ করার সুযোগ পান।

দ্বিতীয়ত, রিচার্জ প্ল্যানগুলির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ পার্থক্য হল মোবাইল সার্ভিসের উপলব্ধির সুবিধা। জিও এই পরিকল্পনায় সাথে ফ্রি কল এবং এসএমএস সুবিধা প্রদান করে, যেখানে এয়ারটেল এই ধরনের সুবিধা সরবরাহ করে না। অতএব, জিওর প্ল্যান ব্যবহারকারীদের জন্য এক পরিপূর্ণ সমাধান হতে পারে যেটি সহজেই তাদের চাহিদা মেটায়।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

জিও ও এয়ারটেলের প্রধান পার্থক্য হল ডেটা অফারের পরিমাণ, জিও সাধারণত একটি ডেইলি ২ জিবি ডেটা অফার করে যেখানে এয়ারটেল সাধারণত ১.৫ জিবি অফার করে।

জিও অতিরিক্ত সুবিধা হিসেবে ফ্রি কল এবং এসএমএস সুবিধা প্রদান করে, যা এয়ারটেল সরবরাহ করে না।

প্রায় সমতুল্য, তবে অফারের সুবিধার মধ্যে পার্থক্য থাকতে পারে।

কিছু প্ল্যানে রয়েছে অতিরিক্ত বোনাস ডেটা, ফ্রি অনলাইন সার্ভিস সাবস্ক্রিপশন, অথবা আরও অনেক বোনাস এমবির সুবিধা।

উপসংহার

৮৪ দিনের রিচার্জ প্ল্যান বিবেচনা করা যাতেছে জেনে দেওয়া হয়েছে যে, জিও এবং এয়ারটেল উভয় দরকারি সুবিধা সম্পন্ন করে। তবে, জিও প্রধানত ডেটা অফারের মাধ্যমে গ্রাহকদের আকর্ষিত করে, যেখানে এয়ারটেল অধিকাংশই সাধারণ ডেটা অফার করে। সাথে জিওর এক্সট্রা সুবিধা হিসেবে ফ্রি কল এবং এসএমএস সুবিধা দেওয়া হয়, যা এয়ারটেলের প্ল্যানে উপলব্ধ নয়। অতএব, যে গ্রাহকরা একসাথে ডেটা এবং কমিউনিকেশন সুবিধার মাধ্যমে সুযোগ পেতে চান, তারা জিও এবং এয়ারটেল উভয়ই বিবেচনা করতে পারেন।

Leave a Comment