আরও সুদর্শন করার জন্য: “Royal Enfield একটি নাম যা একটি উচ্চমানের প্রতীক। এর জন্য শোরুমে মানুষের ভিড় দেখা সাধারণ কিন্তু অবাক করতে পারে এই বাইক যে দামে পাওয়া যায়।”

Jacksons

Royal Enfield

গত বছরের নভেম্বরে, ভারতের অ্যাডভেঞ্চার বাইকের জগতে আলোড়নের সাথে রয়্যাল এনফিল্ড হিমালয়ান ৪৫০ প্রকাশ পেয়েছিল। এটি এনফিল্ডের ইতিহাসে প্রথম মোটরসাইকেল যেখানে লিকুইড কুল্ড ইঞ্জিন ব্যবহার করা হয়েছিল। এই নতুন প্রজন্মের হিমালয়ান বাইকে টুইন স্পার প্লাটফর্ম এবং কানেক্টেড ডিজিটাল ইন্সট্রুমেন্ট কনসোলের মতো ফিচার উল্লেখযোগ্য। এটি অবিচ্ছিন্নভাবে জনপ্রিয়তার চরমে পৌঁছেছে।

এই খবর সামনে আসায় রয়্যাল এনফিল্ডের কর্মীদের উত্সাহ ও আত্মবিশ্বাস উন্নীত হয়েছে। সংস্থার মুখ্য কার্যনির্বাহী বি গোবিন্দরাজন জানিয়েছেন যে আগামী দিনে বিভিন্ন ধাপে হিমালয়ান ৪৫০ বাইকের উৎপাদন বাড়ানো হবে। তারা জানিয়েছেন যে, চলতি বছরের জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহের মধ্যে মোট ৬,৫০০টি হিমালয়ান ৪৫০ বিক্রি করা সম্ভব হতে পারে।

প্রতিষ্ঠানের পরিসংখ্যান দেখে বোধ হয়েছে যে, রয়্যাল এনফিল্ড হিমালয়ান ৪৫০ বাইকের জন্য বিশাল দাবি ও চাহিদা রয়েছে। এ জন্য আন্তর্জাতিক বাজারে ডেলিভারির জন্য প্রোডাকশন এগিয়ে রাখতে হবে। যদিও এখনো পর্যন্ত হিমালয়ান ৪৫০ কত বুকিং পেয়েছে তা স্পষ্ট হয়নি।

রয়্যাল এনফিল্ড হিমালয়ান ৪৫০ মডেলটি উত্তরাধিকারী হিমালয়ান ৪১১ এর উন্নত সংস্করণ হিসেবে প্রকাশিত হয়েছে। এই বাইকটির উচ্চ পারফরম্যান্সে একেবারে কারগর উন্নতি দেখা গেছে। নতুন এই মডেলে সরাসরি সরবরাহ করা হচ্ছে ৪৫২ সিসির লিকুইড কুল্ড ইঞ্জিন। এই ইঞ্জিন সিক্স স্পিড গিয়ার বক্স সহ অন্যান্য উন্নত বৈশিষ্ট্যসমৃদ্ধ। এটি সর্বোচ্চ ৮০০০ আরপিএম গতিতে সর্বাধিক ৩৯.৪ বিএইচপি ক্ষমতা এবং ৫৫০০ আরপিএম গতিতে সর্বাধিক ৪০ এনএম টর্ক প্রদান করতে সক্ষম। এছাড়াও, হিমালয়ান ৪৫০ এর সাসপেনশন অবলম্বন করে ৪৩ মিমি চওড়া উল্টানো ফর্ক সামনে এবং মনোশক অ্যাবজর্ভার পিছনে স্থাপন করা হয়েছে। এর ছাদ দিকে একইভাবে সামনে ২১ ইঞ্চি এবং পিছনে ১৭ ইঞ্চির স্পোক যুক্ত চাকা ও ডুয়েল পারপাস টায়ার সংযোজন করা হয়েছে।

এই প্রযুক্তিগত উন্নতি নিয়ে রয়্যাল এনফিল্ড হিমালয়ান ৪৫০ এবারের চেয়ে আরও ভালো স্থানে আসা লক্ষ্য করেছে। এর মাধ্যমে বাইক প্রেক্ষাপটে বেশি কার্যকর এবং দৃঢ়তা প্রদর্শন করে। বিশেষভাবে উচ্চ গতিতে এবং অসমতুল্য ধারণার পৃষ্ঠে হিমালয়ান ৪৫০ নতুন এক চিত্র তৈরি করেছে। এটি একটি সুস্থ এবং স্থায়ী বেস নিশ্চিত করে, যা বাইকের চালনা অভিজ্ঞতাকে আরও মজবুত এবং আশ্বাসযোগ্য করে।

রয়্যাল এনফিল্ডের হাইমালয়ান ৪৫০ এর নতুন মডেলটি একটি আধুনিক প্রযুক্তিগত দৃষ্টিভঙ্গি উপলব্ধ করে, যা বাইক প্রেক্ষাপটে নিরাপদ এবং সহজলভ্যতা প্রদর্শন করে। এই নতুন মডেল উচ্চ পারফরম্যান্স, সহজ পরিচালনা,

হিমালয়ান ৪৫০ বাইক যেমনভাবে অফরোডে চলার উপযুক্ত তেমন ভাবে এটি প্রতিদিনের কাজেও স্বাচ্ছন্দে ব্যবহার করা যায়। এটি সহজেই পারিবারিক বা দৈনন্দিন কাজের জন্য উপযুক্ত এবং সাথে দিয়ে যাওয়ার জন্য সুবিধাজনক। বর্তমানে, বাইকটির দাম ২.৮৫ লাখ টাকা থেকে শুরু হয়েছে এবং সর্বোচ্চ ২.৯৮ লক্ষ টাকা (এক্স শোরুম) পর্যন্ত পাওয়া যাচ্ছে। এখনো পর্যন্ত বাইকটিতে টিউব যুক্ত টায়ার ব্যবহার করা হলেও অতি দ্রুত ভারতে টিউবলেস টায়ার অপশন আনতে চলেছে রয়্যাল এনফিল্ড।

একটি আশা যে বাইকের সাফল্য আগামী দিনে ৪৫০ সিসির আরো অন্যান্য মোটরসাইকেল আত্মপ্রকাশ করার দরজা খুলে দিতে সক্ষম হবে। হিমালয়ান ৪৫০ এর দাম এবং সুবিধা এমনভাবে সমন্বয় করে একটি বিশেষ সাধারণ বা বাজারের জনপ্রিয় বাইক তৈরি করেছে যা আগামীতে আরও প্রচলিত হবে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

এই স্মার্টওয়াচটি প্রায় ৭ দিন ব্যাটারি লাইফ প্রদান করতে পারে, যা ব্যবহারকারীদের দিনের প্রচুর সময় সাথে থাকার সুযোগ প্রদান করে।

হ্যাঁ, Noise NoiseFit Twist Go ফিটনেস ট্র্যাকিং সুবিধা সহ আসলে একটি প্রো-ফিটনেস প্যার্টনার হিসেবে পরিচিত।

এই স্মার্টওয়াচটির জন্য একটি ফাঙ্কশনাল ক্রাউন এবং মেটালিক, মেস এবং সিলিকন স্ট্র্যাপ অপশন উপলব্ধ আছে।

হ্যাঁ, এই স্মার্টওয়াচটি একটি পরিবর্তনশীল ওয়াচফেস সহ ১.৩৯ ইঞ্চি ডিসপ্লে প্রদর্শিত করে।

উপসংহার

এর উপরে আলোচনা করে দেখা যায় যে, Royal Enfield এর পণ্যের জন্য গড় মানের সাথে মিল খুঁজে পাওয়া যায় এবং এটি বাইক প্রেমিকদের মধ্যে একটি জনপ্রিয় নামে উপস্থিত। তার সহজ ব্যবহার এবং দীর্ঘদিনের দৃঢ় নির্ভরতা একটি সকালে অফিসে যেমন চলতে যায়, ঠিক তেমনভাবে এটি দুর্দান্ত ভ্রমণের জন্যও অত্যন্ত উপযুক্ত। এই পরিস্থিতিতে, দামের সাথে সাথে যে সব সুবিধা এবং অফার সরবরাহ করা হয়, তা দেখে শোরুমে অত্যাধিক ভির দেখা যায়। এতে নিশ্চিত হয় যে, এই ব্র্যান্ডের বাইক নিয়ে মানুষরা খুব উত্সাহিত এবং আগ্রহী, যা সর্বদা প্রতিষ্ঠানের অবাক ও গর্বিত করে।

Leave a Comment