Maruti Jimny: ভারতে বিক্রি বিফল, বন্ধুরাষ্ট্রে মারুতি জিমনি বিক্রি করছে আবার।

Jacksons

Updated on:

Maruti Jimny

গত বছরে, ভারতে Mahindra Thar এর প্রতিযোগী হিসেবে Jimny নামে Maruti Suzuki কর্পোরেশন একটি গাড়ি লঞ্চ করেছিল। প্রাথমিকভাবে সব কিছু ভালো চললেও, সর্বশেষ কয়েক মাসে জিমনির বিক্রি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। গত মাসে, মাত্র ১৬৩ ইউনিট Jimny বিক্রি হয়েছে। সময়ের সাথে Mahindra Thar-এর বিপণন কিছুটা কমেছে, তার বিপণন ৬,০০০-এর বেশি মডেল হয়েছে মাত্র। এই অবস্থায়, Maruti ভারতে বিক্রি বাড়াতে চেষ্টা করেছে জিমনি ইন্দোনেশিয়াতে লঞ্চ করতে। এই ইন্দোনেশিয়ান ভার্সন ভারতীয় ভার্সনের মতো তবে একটি পার্থক্য হল ইঞ্জিন স্টার্ট/স্টপ করার পুশ-বাটন এখানে অনুপস্থিত।

এই অবস্থার প্রাসঙ্গিকতা অনুযায়ী, বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা প্রকৃত প্রয়োজনে সম্পূর্ণ ব্যবস্থা সংযোজন করছেন যাতে বেশি গাড়ি বিক্রি হতে পারে। Mahindra Thar-এর ক্ষেত্রে, কিছু বাস্তবায়ন সমাধান অনুপ্রাণিত হতে পারে, যেমন পরিবর্তনশীল বিজ্ঞাপন বা প্রযুক্তিগত উন্নতি। বিপণন নিয়ে সঠিক পরিকল্পনা এবং প্রযুক্তিগত উন্নতি সাপেক্ষে, বাংলাদেশের গাড়ি বাজার উন্নতির পথে আরও এগিয়ে যেতে পারে।

ইন্দোনেশিয়ায় বাজারে মারুতি সুজুকি জিমনি ফাইভ-ডোর মডেল প্রস্তুত করা হয়েছে, যা ভারতীয় মডেলের অনুকরণে তৈরি করা। এই গাড়িতে ১.৫ লিটার পেট্রোল ইঞ্জিন ব্যবহার করা হয়েছে যা ৬,০০০ আরপিএম গতিতে সর্বোচ্চ ১০৩ বিএইচপি এবং ৪,০০০ আরপিএম গতিতে ১৩৪ এনএম টর্ক উৎপন্ন করতে সক্ষম। গাড়িটির ৫-স্পিড ম্যানুয়াল গিয়ারবক্স বা ৪-স্পিড টর্ক কনভার্টার অটোমেটিক ট্রান্সমিশনে চালানো যাবে। সুজুকি এতে ফোর হুইল ড্রাইভ পাওয়া পাওয়ায় স্ট্যান্ডার্ড ফিচার হিসেবে প্রদান করবে।

প্রসঙ্গে, ভারতের বাজারে এই গাড়িটির দুটি ভার্সন, Zeta এবং Alpha, বিক্রি করা হয়েছে মারুতি সুজুকি দ্বারা। উভয় ভ্যারিয়েন্টে অটোমেটিক ট্রান্সমিশন অপশন উপলব্ধ করা হয়েছে। ভারতে এই মডেল দুটির মূল্য যথাক্রমে ১২.৭৪ লক্ষ ও ১৪.৯৫ লক্ষ টাকা (এক্স-শোরুম)। ইন্দোনেশিয়ায় এই গাড়ির মূল্য ভারতীয় মুদ্রায় ২৪.৪৮ লক্ষ টাকা থেকে শুরু করে।

এই নতুন মডেলে সুজুকি ভারতীয় এবং ইন্দোনেশিয়ান বাজারের জন্য একইভাবে আকর্ষণীয় ফিচার ও সর্বোত্তম পারফরমেন্স প্রদানের লক্ষ্যে এই মডেলটি ডিজাইন করেছে। এটি বাজারে প্রতিষ্ঠানের প্রতিদিনের চাহিদা এবং ব্যবহারকারীদের প্রত্যাশা মেটাতে উপযোগী হবে। এই গাড়িটির সম্মিলিত প্যাকেজ এবং বিভিন্ন ভার্সন অপশন সহজেই ব্যবহারযোগ্য এবং প্রাকৃতিকভাবে গাড়ির ব্যবহারকারীর প্রত্যাশা পূরণ করতে সাহায্য করবে।

গত বছরের ডিসেম্বর মাসে, জিমনি কোম্পানি তাদের নতুন মডেল Thunder Edition লঞ্চ করে। এটি মার্কেটের সবচেয়ে অর্থপ্রাণ এবং জনপ্রিয় মডেল হিসেবে উল্লেখ্য ছিল। এর দাম এক্স-শোরুমে ১০.৭৪ লক্ষ টাকা ছিল। দ্রুততম গ্রাহকসমূহের আকর্ষণে আসার কারণে, লিমিটেড এডিশন মডেলগুলি শীঘ্রই বিক্রি শেষ হয়ে গেছে। থান্ডার এডিশনে অতিরিক্ত ফিচারগুলি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, যেমন ফ্রন্ট স্কিড প্লেট, সাইড ডোর ক্ল্যাডিং, ডোর ভাইজার, ডোর সিল গার্ড, রাস্টিক ট্যানে গ্রিপ কভার, ফ্লোর ম্যাট, এবং এক্সটেরিয়ারে অ্যাট্রাক্টিভ গ্রাফিক্স। এই প্রযুক্তিগুলি সমন্বিত করে এই মডেলটির গুনগত মান এবং আকর্ষণীয়তা বাড়িয়ে তুলেছে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

জিমনির প্রধান মডেলে একটি ১.৫ লিটার পেট্রোল ইঞ্জিন ব্যবহার করা হয়, যা মোটরের সাইজ এবং কারণে সম্পূর্ণ শহরের গাড়ির জন্য উপযোগী।

জিমনির মূল্য ভারতে প্রায় ৭-১০ লাখ টাকা পর্যন্ত হতে পারে, তারপরে সংযোজন সামগ্রী এবং অন্যান্য বৈশিষ্ট্যের উপর ভিত্তি করে পরিবর্তন হয়ে যায়।

জিমনি স্ট্যান্ডার্ড ফিচার হিসেবে পাওয়া যায় ফোর হুইল ড্রাইভ, পাওয়ার স্টীয়ারিং, পাওয়ার ব্রেক, এবং সেফটি ফিচার যেমন ABS ও EBD।

বর্তমানে জিমনি বিভিন্ন রঙে উপলব্ধ, যেমন সবুজ, কালো, লাল, সফেদ ইত্যাদি। কাস্টমাররা তাদের পছন্দের রং নির্বাচন করতে পারেন।

উপসংহার

মারুতি জিমনি একটি গাড়ি যা ভারতে একটি নেতার অসাফল্য হিসাবে পরিচিত, কিন্তু বিদেশে একটি সফল পথে চলছে। এই গাড়ির জনপ্রিয়তা বিভিন্ন কারণে বাড়ছে, যেমন এর সহজ ব্যবহার, দামের সাথে তুলনামূলকভাবে বেশি বৈপ্রতীপ্ত ক্ষেত্রে ভারতীয় মানুষের জন্য এটি একটি আকর্ষণীয় বিকল্প। এই গাড়ির বিভিন্ন মডেল ও অপশন সহজে বিশেষজ্ঞদের এবং গাড়ির ব্যবহারকারীদের প্রত্যাশার মধ্যে সম্মিলিত হয়ে গিয়েছে। এই প্রাকৃতিক সফলতা দেখে মারুতি এই মডেলটি বিদেশে বিক্রি করছে, একটি প্রস্তুতি যা তাদের বাজার প্রতিস্থাপনের লক্ষ্য হিসাবে পরিচিত। এই উদ্যোগের মাধ্যমে জিমনি একটি নতুন দিকের দিকে নেতৃত্ব নেবে, যা প্রতিষ্ঠানের অবাক করা প্রকাশের একটি উদাহরণ।

Leave a Comment