Smartphone Battery Care: ফোনের ব্যাটারি লাইফ বাড়াতে এই পাঁচটি কাজ আজই প্রয়োজন

Jacksons

Smartphone Battery Care

ব্যাটারি ভালো রাখতে স্মার্টফোন নিয়ে কোন কোন বদ অভ্যাসগুলি আজই ত্যাগ করা উচিত জেনে নিন

স্মার্টফোনের ব্যাটারি ক্যাপাসিটি বেশি থাকলেও, অশোকানুশোক ব্যবহারের কারণে এটি দ্রুত নষ্ট হতে পারে। প্রথম অভ্যন্তরীণ বদ অভ্যাস হলো স্মার্টফোন চার্জের মাধ্যমে দেখা দেয়া সম্পূর্ণ মেয়াদে রাখা। ব্যাটারির পূর্ণ মেয়াদের বেশি চার্জে রাখা স্মার্টফোনের ব্যাটারির জীবনকে কমিয়ে আনতে সহায়ক। তাই এটি দ্রুত নষ্ট হতে পারে এবং এটির পারফরমেন্সে মারাত্মক কমনে আসতে পারে।

দ্বিতীয়তম অভ্যন্তরীণ বদ অভ্যাস হলো স্মার্টফোন ব্যবহারের সময় চার্জিং কেবল আধুনিক এবং ওয়াল সকেটে করা। এটি ব্যাটারির জীবনকে কমিয়ে আনতে এবং ব্যাটারির ক্ষমতা সংরক্ষণ করতে সাহায্য করতে পারে। আধুনিক ওয়াল সকেটগুলি তাপমুক্ত এবং অভ্যন্তরীণ তাপমুক্তিতে রাখতে সক্ষম, যা ব্যাটারির জীবনকে বাড়াতে সাহায্য করে।

বরফের মধ্যে ফোন রাখা

যদি ফোন অতিরিক্ত গরম হয়ে গেলে, তা ফোনের ব্যাটারির জন্য একটি চিন্তায় পরিণত হতে পারে। বরফে ভরা বা ফ্রিজে রাখা ব্যাটারির জন্য ভালো নয়, বরং সামান্য সময়ের জন্য মোবাইল ফোন ব্যবহার করা বন্ধ করা গুলি দ্বারা তা ঠিক রাখা সহজ।

এটা একটি কোম্প্যাক্ট ও ভারবাহিত বয়ার হিসেবে বোঝা যায় যে, একটি দ্বিতীয়ের জন্য ফোন ব্যবহার বন্ধ করতে সহজ হতে পারে যদি তা জরুরী না হয়। এটি একটি বিশ্রামকে পূর্বাভাস করে, যার ফলে ব্যাটারির জীবনকে সঠিকভাবে মেনে নেওয়া যেতে পারে। এছাড়াও, ফোন অতিরিক্ত গরম হলে এটি প্রতিষ্ঠানের সবচেয়ে ঠান্ডা জায়গায় রাখা হোক যাতে ফোনের তাপমাত্রা নির্ধারণ হতে পারে এবং ব্যাটারির ক্ষতি মিনিমাইজ হতে পারে। এটি যে কোন সময়ে ব্যবহার করা যেতে পারে এবং এটির মাধ্যমে ফোনের ব্যাটারির প্রথমিক সুরক্ষা নিশ্চিত করা যেতে পারে।

এক্ষুনি চার্জ করুন

যদি আপনি একটি ফোনটি দীর্ঘক্ষণ চার্জ দেন, তবে ব্যাটারির ওপর অতিরিক্ত চাপ পড়তে পারে। এই সময়ে ব্যাটারি চার্জ হওয়ার পর চার্জার খোলে দেওয়া ভালো উপায় হতে পারে। এটি ব্যাটারির জীবনকে বাড়ানোর একটি উপায় হতে পারে এবং অতিরিক্ত চার্জিং থেকে ব্যাটারির সুরক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে।

বিশেষজ্ঞরা একটি ব্যাটারি চার্জ করার পর তা পুরোপুরি ১০০ শতাংশ হওয়া পর্যন্ত চার্জ করা উচিত নয়, তার বদলে ৯৫ শতাংশ পর্যন্ত চার্জ রাখা উচিত বলে মন্তব্য করেন। এটি ব্যাটারির সঠিক মৌখিক স্বাস্থ্য বজায় রাখতে সাহায্য করতে পারে এবং সাথে সাথে ব্যাটারির জীবনকে বাড়ানোর সুযোগ করতে পারে।

তাপমাত্রা অগুলি অবাক করা

ব্যাটারি যদি অত্যন্ত তাপমানে বৃদ্ধি প্রাপ্ত হয়, তবে সেটির জীবনকালে কমনে আসতে পারে। তাপমানের একটি বৃদ্ধি তার ক্ষমতা এবং দুর্বলতা বৃদ্ধি করে এবং তার উপর মোবাইল ডিভাইসের পারফরম্যান্সে প্রভাব ফেলতে পারে। এছাড়াও, যদি ব্যাটারি বা মোবাইল ডিভাইস একটি স্থানে একটি দীর্ঘকাল ধরে গরম থাকে, তবে তার জীবনকাল আরও কমতে পারে।

একটি ব্যাটারি তার জীবনকাল বাতিল করতে পারে যদি সে অতিরিক্ত তাপমানে এক্সপোজ হয় এবং এটি ব্যবহার করা হয় যত্নশীলভাবে না হয়ে। সুতরাং, ব্যাটারির জীবনকাল বাড়াতে, তাকে সুতরাং হালকা এবং শীতল অবস্থানে সংরক্ষণ করা গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও, অতিরিক্ত গরম দূর করতে তার উপর অতিরিক্ত চার্জ দেওয়া বা ব্যাটারির শূন্য হারানোর আগে তা ঠান্ডা করতে সাহায্য করতে হবে।

ফাস্ট চার্জার ব্যবহার

ফোনটি দ্রুত চার্জ করতে চাইলে, আমরা অবশ্যই বেশি ওয়াটের চার্জার ব্যবহার করতে স্বচ্ছ হয়ে থাকি, কিন্তু এটি বিশেষত মোবাইল ব্যাটারির জন্য একটি বিপজ্জনক পদক্ষেপ হতে পারে। এই ধরণের চার্জার ব্যবহারে ব্যাটারির ওপর অতিরিক্ত চাপ পড়তে পারে এবং এটি ক্ষতি হতে পারে। তাই আমাদের অভিজ্ঞানের অনুযায়ী, এটি উচিতভাবে ব্যবহার করা গুরুত্বপূর্ণ। শুধুমাত্র নির্দিষ্ট ফোনগুলির জন্য ডিজাইন করা চার্জার ব্যবহার করলে আমরা ব্যাটারির জীবনকে বাড়ানোর চেষ্টা করতে পারি এবং এটির সুরক্ষা করতে পারি।

ব্যাটারি চার্জে ৫% এর পরও ব্যবহার করা

ব্যাটারি যদি সম্পূর্ণভাবে শেষ না যাওয়ার চেষ্টা করা হয়, তবে এটির জীবনকালে হ্রাস হতে পারে। ব্যাটারির চার্জটি সব সময় ২০-৮০% এর মধ্যে থাকলে তা ব্যাটারির দীর্ঘস্থায়ী উপযোগীতা বজায় রাখতে সাহায্য করে। এটি ব্যাটারির প্রশ্রয়ণ ও ব্যাটারির জীবনকালে প্রতিশ্রুতিপূর্ণ প্রভাব ফেলতে সাহায্য করতে পারে।

অনেকে এটি ৫০% হওয়ার পরে পাওয়ার সেভিং মোডটি ব্যবহার করেন, যা সম্পূর্ণ চার্জ থেকে আবার চার্জে পৌঁছানোর পর এই মোডটি অটোমেটিকভাবে বন্ধ হয়ে যায়। এটি ব্যাটারি ব্যবহারের সময়ে শক্তি সঞ্চয় করতে সাহায্য করে এবং চার্জের সাথে ব্যাটারির জীবনকাল বাড়াতে সাহায্য করতে পারে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

ব্যাটারি চার্জ রেঞ্জ ২০-৮০% মধ্যে রাখা একটি ভালো অভ্যন্তরীণ অভ্যন্তরীণ নীতি, যা ব্যাটারির সাথে যোগান এবং লগতে সাহায্য করে তার জীবনকাল বাড়াতে।

সহীত চার্জ করা শুরু করুন যখন ব্যাটারি ২০% হবে এবং চার্জ করতে বন্ধ করুন যখন ৮০% হয়ে যাবে।

স্ক্রিন টাইমআউট সেটিংসে সময় কমানো, ব্যাকগ্রাউন্ডে চলা অ্যাপস বন্ধ করা এবং স্বপ্ন টাইম বাড়ানো দ্বারা ফোনের ব্যাটারি লাইফ বাড়াতে পারে।

এই স্ক্যানার ব্যবহার করে যে কোন ভাইরাস বা ম্যালওয়্যার প্রতিরোধ করা হতে পারে, যা ফোনের সুরক্ষা এবং কার্যক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করতে পারে।

উপসংহার

স্মার্টফোনের ব্যাটারি লাইফ বাড়াতে বা দ্রুত কমতে আপনি এই পাঁচটি উপায়ের মধ্যে বিবেচনা করতে পারেন। প্রথমত, অধুনিকতম প্রযুক্তি অফ করুন যেমন ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যাপসের নোটিফিকেশন বা লাইট এবং সাউন্ড সেটিংসের একটি দৈবদৃষ্টি। এছাড়া, শক্তিশৃঙ্খলা সম্পর্কে আপনার ফোনের সেটিংসে মোড বজায় রাখাও গুরুত্বপূর্ণ।

দ্বিতীয়ত, ব্যাটারির চার্জ রেঞ্জটি সঠিকভাবে মেনে চলতে হবে। অফিসিয়াল হয়ে সাপ্লাইড করা হোয়া চার্জার এবং মোবাইল ডিভাইস কোম্প্যাটিবিলিটি থাকতে হবে, যাতে ব্যাটারি চার্জের সময় সুরক্ষা হয়। এই উপায়ে ব্যাটারির চার্জ রেঞ্জ দৈবদৃষ্টি রেখে তার জীবনকাল বাড়ানো সম্ভাবনা বেড়ে যায়, যা এক স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর জন্য একটি শক্তিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে সাহায্য করে।

Leave a Comment