Elon Musk Xmail: Gmail-এর রাজত্ব শেষ, ইলন মাস্কের নতুন ইমেল পরিষেবা আসছে।

Jacksons

Elon Musk Xmail

প্ল্যাটফর্মের কর্ণধার ইলন মাস্ক সম্পর্কে খবরের মাধ্যমে সাধারণত তার দাবিদাওয়া এবং মন্তব্য সম্পর্কে আলোচনা চলে। কিছুদিন আগে, তিনি নিজের মোবাইল ফোনের নম্বর বন্ধ করে দিয়ে মেসেজ, অডিও এবং ভিডিও কলের জন্য তার X প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করতে ইচ্ছুক হয়েছিলেন। এই সিদ্ধান্ত প্রকাশ্যে কয়েকদিনের মধ্যে উনি নিজেকে সীমাবদ্ধ থেকে মুক্ত করে নেওয়ার জন্য একটি পদক্ষেপ হিসেবে গণ্য হতে পারে। আরও সাময়িকভাবে, আজ আমেরিকার এই উদ্যোক্তা, Google-এর Gmail পরিষেবাকে অগ্রাধিকারে পরিষেবার প্রাধান্য প্রদানের জন্য Xmail নামের একটি নতুন ই-মেল পরিষেবা লঞ্চ করতে যাচ্ছেন। এই প্রতিষ্ঠানিক পদক্ষেপের মাধ্যমে, তিনি ইতিমধ্যেই বিশ্বের সবচেয়ে বৃহৎ ও প্রভাবশালী কোম্পানির একটি সাথে যোগাযোগ স্থাপন করেছেন, যা তার ইনোভেটিভ উদ্যোগগুলির একটি নতুন দিক প্রকাশ করে।

Gmail-এর প্রতিদ্বন্দী হিসেবে Xmail ইলন মাস্ক আনছে।

গত কয়েকদিনের মধ্যে, ইন্টারনেটে জিমেল সেবা বন্ধ হওয়ার সম্পর্কে দাবির অন্যত্র দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়েছিল। এই অবস্থায়, একাধিক ব্যক্তি ইন্টারনেটের প্রসারের মাধ্যমে গুগল জিমেল এর সার্ভিস বন্ধ হবে এর চিন্তা নিতে লাগলেন। এই প্রসঙ্গে, একজন X প্ল্যাটফর্মের সিকিউরিটি ইঞ্জিনিয়ারিং টিমের সিনিয়র সদস্য নাথান ম্যাকগ্র্যাডি ইলন মাস্ককে এক্সমেলের লঞ্চিং তারিখ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করেন। এবং প্রত্যুত্তরে, X সিইও নিশ্চিত করেন যে, এই কাজ অনেকটাই অগ্রসর হয়েছে এবং খুব শীঘ্রই এক্সমেল চালু হবে।

কয়েক দিন আগে, গুগল থেকে একটি ইমেল স্ক্রিনশট অনলাইনে ভাইরাল হয়েছিল, যেখানে লেখা ছিল – আগামী ১লা আগস্ট ২০২৪ থেকে গুগল জিমেল সমস্ত ক্রিয়াকলাপ বন্ধ করে দেবে। যার মাধ্যমে ইমেল পাঠানো, গ্রহণ করা বা সংরক্ষণ করার মতো কাজ করা যাবে না। তবে, প্রথমে এই ইমেল বা স্ক্রিনশট গুগল এর অনুমোদন ছাড়াই প্রকাশিত হয় না, যার ফলে এই খবরের সত্যতা নিয়ে সন্দেহ ছিল।

এই ঘটনার সময়ে, গুগলের জিমেল বন্ধের প্রস্তুতির প্রেক্ষিতে ব্যক্তিগত এবং পেশাদার ব্যবহারকারীরা এই প্ল্যাটফর্মের ব্যবহারে দীর্ঘদিন পরিচিতি অর্জন করে আসায় তাদের জন্য এটি একটি মূর্ত চ্যালেঞ্জ হতে পারে। তবে, সংশয়বাদী হতাশা ছাড়াও, বেশিরভাগ ব্যবহারকারী এই নির্দিষ্ট পরিস্থিতিতে সাধারণত বিভ্রান্তি অথবা নিরাশা অনুভব করেন না।

তবে, টেক জানটি হালফিলে ইলন মাস্কের X প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে নিশ্চিত করেছে যে এই খবর ভুয়ো নয়। জিমেল বন্ধ করা হচ্ছে না। বরং, ব্যবহারকারীদের আরো উন্নত অভিজ্ঞতা প্রদানের জন্য টেক জানটি জিমেল-এর ডিফল্ট ভিউ বেসিক এইচটিএমএল (HTML) থেকে আরও প্রাণবন্ত ইন্টারফেসে পরিবর্তন করেছে। এটি যেটা বহু ব্যবহারকারী দ্বারা ইতিমধ্যেই প্রশংসিত হয়েছে। এটি নতুন যে ইন্টারফেসটি ব্যবহারকারীদের দ্বারা স্বাগতপ্রদ হবে সেটা নিশ্চিত করতে মতিচাপা আছে।

প্রসঙ্গে Xmail-এর আগমনের খবরে অনেকেই উত্তেজিত হয়েছেন। এখনো পর্যন্ত ইমেল পরিষেবার মাঠে গুগল একাই রাজ করছে। কিন্তু এক্সমেল লঞ্চ হওয়ার পর টেক জানটি যথেষ্টই প্রতিদ্বন্দ্বিতার সম্মুখীন হবে বলেই মনে হচ্ছে। অন্তত মানুষের প্রতিক্রিয়া এমনটাই ইঙ্গিত দিচ্ছে। এই নতুন প্ল্যাটফর্মটি কি আপেক্ষিকভাবে গুগল জিমেলকে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ করতে পারবে, সেটি অপেক্ষা করা যায় না।

এক্সমেলের আগমন নিয়ে মানুষের এই প্রতিক্রিয়া দেখে টেক জানটি আরও উন্নতি করবে বলে মনে হচ্ছে। ইউজারদের প্রতিক্রিয়া ও প্রয়োজনীয় পরিবর্তন সম্পর্কে মন্তব্য সংগ্রহ করে এটি আরও বিশেষজ্ঞতা অর্জন করতে চলেছে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

এলন মাস্ক এক্সমেইল লঞ্চ করা হচ্ছে যাতে গুগল জিমেইল এর স্থানান্তর করা যায় এবং ব্যবহারকারীদের অধিক পরিষেবা প্রদান করা যায়।

এক্সমেইল ব্যবহার করার জন্য কোন বিশেষ প্রয়োজন নেই। ব্যবহারকারীদের বর্তমান ইমেইল ঠিকানা সংরক্ষণ করে এক্সমেইল এ মাইগ্রেট করা যেতে পারে।

হ্যাঁ, এক্সমেইল ব্যবহারের জন্য খরচ আছে, কিন্তু বর্তমানে তা নির্ধারিত নয়।

এক্সমেইলে প্রধানত গুগল জিমেইলের সাথে মুল সামঞ্জস্যপূর্ণ বৈশিষ্ট্য রয়েছে, তবে এর সাথে এক্সপ্লোর করার জন্য নতুন ইনোভেটিভ বৈশিষ্ট্যগুলি সহ অনেক উন্নত ফিচার সহযোগিতা করা হয়েছে।

উপসংহার

এলন মাস্কের Xmail এর শুরুর সাথে, জিমেল এর রাজত্ব শেষ হচ্ছে এবং এক নতুন ইমেল পরিষেবা এসে উঠছে। এই উপলব্ধি গুগলের ব্যবহারকারীদের জন্য একটি সুখবর, যা সম্পূর্ণ নতুন অভিজ্ঞতা এবং সুরক্ষা সঙ্গে আসছে। এলন মাস্কের প্রযুক্তির মাধ্যমে তৈরি Xmail এর চালুর আনুমানিক সময় অত্যন্ত সংক্ষেপে উল্লেখ করা হয়েছে, এবং গুগলের ব্যবহারকারীদের আশা করা হচ্ছে যে এটি অনুপ্রাণিত বৈশিষ্ট্য এবং উন্নত বেহাদ সুরক্ষিত পরিবেশ সহ আনতে পারে। এটি আস্তে আস্তে ব্যবহারকারীদের পছন্দ হতে পারে এবং ইমেল যে সুবিধা দেয়, তা আবারো সাধারণ পরিস্থিতিতে প্রদান করতে পারে। Xmail এর উত্থানের সাথে সাথে ইন্টারনেটের এই নতুন যাত্রা নিরাপদ এবং সুবিধাজনক হতে পারে।

Leave a Comment