বিশ্বকাপে নিষেধাজ্ঞা থেকে বাঁচতেই টেস্ট অবসর ভেঙেছিলেন Hasaranga

Jacksons

বিশ্বকাপ

সোমবার অবসর ভেঙ্গে আবার টেস্ট ক্রিকেটে ফিরেছেন অভিজ্ঞ শ্রীলঙ্কান অলরাউন্ডার ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা। প্রায় সাত মাস আগে সাদা পোষাকের ক্রিকেটকে বিদায় জানালেও, আবার সেই অবসর ভেঙ্গেছেন হাসারাঙ্গা। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে দুটি টেস্টে হাসারাঙ্গাকে শ্রীলঙ্কান স্কোয়াডের যুক্ত করা হলেও, ওই দুই টেস্টে খেলতে পারবেন না তিনি। এই তথ্যের পেছনে কি কারণে হাসারাঙ্গার বিদায়ের ঘটনা ঘটেছে, সেটি স্পষ্ট হয়নি।

সূত্রের খবর অনুযায়ী জানা যাচ্ছে, ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা আসন্ন বাংলাদেশের বিরুদ্ধে শ্রীলঙ্কার টেস্ট স্কোয়াডে থাকলেও, তাকে ওই দুটি টেস্ট থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এ অবস্থার জন্য আইসিসি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে হাসারাঙ্গার শাস্তির বিষয়ে জানিয়েছে। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে তৃতীয় ওডিআই ম্যাচে হাসারাঙ্গা এমন কান্ড ঘটিয়েছেন, যার জেরে তার ডিমেরিট পয়েন্টও কাটা হয়েছে। হাসারাঙ্গার আইসিসি নির্দেশিত শাস্তির ফলে তিনি দুটি টেস্ট খেলতে অসম্ভব হয়ে যাচ্ছেন।

ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার অস্বাভাবিক ঘটনার ফলে বাংলাদেশ দুটি টেস্টে খেলার সুযোগ হারিয়ে দিয়েছেন। তার আপেক্ষিক অনুপ্রেরণা বা খারাপ অবস্থানে এ ধরনের অস্বাভাবিক কার্যকারিতা সামলাতে হবে এবং সম্প্রতি তিনি প্রতিবাদ করা বুদ্ধিমত্তা দেখানোর জন্য আইসিসি প্রতিরক্ষা নেয়া প্রয়োজন।

বাংলাদেশের ইনিংসের ৩৭তম ওভারে হাসারাঙ্গা নিজের ক্যাপ কেড়ে নিয়েছিলেন এবং এর ফলে তাকে আম্পায়ারের দ্বারা শাস্তি দেওয়া হয়েছে। এই শাস্তির সংবাদ প্রথমে তার জানিয়ে দেওয়া হয়নি, তবে পরে আইসিসি এই অধিকারের বিষয়ে বিবৃতি জানিয়েছে। আইসিসির নিয়মে যে কোনো ক্রিকেটার যদি ২ বছরের মধ্যে ৮ টি ডিমেরিট পয়েন্ট প্রাপ্ত করে, তবে তাকে ৭.৬ ধারায় প্রতিষেধ করা হবে। এই নিয়মে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ওই দুই টেস্টে হাসারাঙ্গার ৮ টি ডিমেরিট পয়েন্ট পূরণ হয়েছে এবং তার ফলে তিনি এই টেস্ট ম্যাচ থেকে নিষিদ্ধ হন।

তবে, হাসারাঙ্গা এই ঘটনায় নিজের টি-২০ বিশ্বকাপের সংখ্যার দিকে নজর দিয়েছেন। তিনি যাতে তার পরিকল্পনা ব্যাবস্থিত থাকেন, টি-২০ বিশ্বকাপে কোনো ম্যাচ অবসর না হয়। তাই তিনি বোর্ডের সাথে বৈঠক করে এই বিষয়ে আলোচনা করেছেন। ওই দুই টেস্টে নিষিদ্ধ হওয়া সম্পর্কে তিনি সর্বদা তা গুপ্ত রেখেছেন, যেহেতু তার লক্ষ্য হলো তিনি টি-২০ বিশ্বকাপে অংশ নিতে পারেন।

হাসারাঙ্গা টি-২০ বিশ্বকাপের জন্য প্রথম থেকেই তৈরি হয়েছেন এবং তার পরিকল্পনা একত্রিত করার জন্য তিনি সকল সম্ভাব্য পদক্ষেপ নেবেন। হাসারাঙ্গার এই নিষিদ্ধির ফলে তিনি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সম্মানিত টি-২০ বিশ্বকাপ ম্যাচে অংশ নিতে পারবেন না, তবে তিনি শ্রীলঙ্কার হয়ে মাঠে নামতে পারবেন তার জন্য তিনি এখনও ব্যর্থ হতে চাইনি।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

হাসারাঙ্গা ২০২৩ সালে বাংলাদেশে আয়োজিত হওয়া বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে চলেছিলেন।

হাসারাঙ্গা তাঁর প্রধান উদ্দেশ্য থেকে বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে চাইলেন, যার ফলে বিশ্বকাপ পরিচালক কমিটি তাঁকে নিষেধাজ্ঞা থেকে মুক্তি দেন।

বর্তমানে হাসারাঙ্গা তাঁর সময়কে বিশ্বকাপের জন্য প্রস্তুতি নিয়েছেন এবং আমন্ত্রিত অংশগ্রহণের জন্য তৈরি আছেন।

হাসারাঙ্গা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করে তাঁর দক্ষতা ও ক্রিকেট জ্ঞান দেখানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তিনি তার দলের জন্য প্রস্তুতি নিয়েছেন এবং দলের সাথে একটি অগ্রাধিকার সাধারণ করতে চান।

উপসংহার

হাসারাঙ্গা বিশ্বকাপের নিষিদ্ধি থেকে বাঁচতে একটি প্রাথমিক কদম নেওয়া চেষ্টা করেছিলেন। তিনি বিশ্বকাপে অংশগ্রহণের চেষ্টা করেছিলেন যাতে তার ক্রিকেট পাঠকের প্রতি আত্মবিশ্বাস এবং প্রেরণা বৃদ্ধি করতে। তবে, তার সুপারিশেও হাসারাঙ্গা বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট অবসর ভেঙে দেওয়া হয়েছে। এই সম্প্রতির ঘটনা প্রমাণ করে দেওয়া হয়েছে যে, তিনি আসলে খেলার মাধ্যমে আত্মবিশ্বাস ও প্রেরণা বৃদ্ধি করার উদ্দেশ্যে বিভিন্ন ধরনের প্রচেষ্টা নিয়েছেন। এই বিশেষ উদাহরণ তার ব্যক্তিগত সংগ্রামের ইতিহাসে এক অনুপ্রেরণাদায়ক অংশ গড়ে তোলে। এখানে হাসারাঙ্গার উদ্বুদ্ধ প্রচেষ্টা তার প্রতিটি ক্রিকেট প্রেমিকের হৃদয়ে এক নতুন আলো আবিষ্কার করে তুলে ধরতে পারে।

Leave a Comment