বাইরে থেকে আম্পায়ারকে সিদ্ধান্ত বদলাতে দিয়েছিলেন চাপ, এবার পোলার্ড, টিম ডেভিডদের বড় শাস্তি শোনালো BCCI

BCCI 18 এপ্রিলে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ও পাঞ্জাব কিংস মধ্যে একটি রোদ্দুর ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এই ম্যাচে প্রথম ইনিংসের শুরুতে মুম্বাই ব্যাটিং দল অনেকটাই জটিল অবস্থায় পরিণত হলেও, তাদের ব্যাটসম্যানরা সূর্যকুমার যাদব এবং তিলক বর্মা কৌশলের সাহায্যে দলের হাল ধরেন।

সূর্যকুমার যাদব এই ম্যাচে অসাধারণ একটি পারফর্মেন্স দেয়েছেন যেখানে তিনি অসাধারণ ব্যাটিং করে ৮৩ রান স্কোর করেন। অপর দিকে, তিলক বর্মা তাঁর অবশ্যইক যোগাযোগ এবং সহায়তা প্রদান করে ৪৬ রান স্কোর করেন। এই দুই ব্যাটসম্যান মিলিতে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স দলকে মজবুত করে দিয়েছিলেন এবং তাদের দলের পারফর্মেন্সের গতি বৃদ্ধি করেছিলেন।

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স দলের এই ব্যাটিং পারফর্মেন্স ম্যাচের সময় দলের মোট রানের স্কোর তাড়াতাড়ি বাড়িয়ে উঠিয়েছিল এবং দলকে কৃত্রিম আশা দেখায় যে তারা ম্যাচটি জিততে পারবে। তবে, এই ম্যাচের ফলাফল দ্রুত পাঞ্জাব কিংসের হাতে জায়গা নেওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

আইপিএল 2024 সিজনে বিসিসিআই দ্বারা ম্যাচগুলি সঠিকভাবে পরিচালিত করার জন্য নিখুঁত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এই ব্যবস্থাগুলির মধ্যে ক্রিকেটারদের প্রতি ম্যাচে বিশেষ নিয়ম প্রয়োগ করা হয়ে থাকে যাতে তাদের আচরণ ও গেমপ্লে নিয়ন্ত্রিত থাকে। এই নিয়মগুলি মানসম্মতভাবে অনুসরণ করা অত্যন্ত জরুরি, কারণ এর পালন না করলে ক্রিকেটারদের জন্য শাস্তির মুখে পরার ব্যাপারে সংশ্রয় সৃষ্টি হতে পারে।

একই সঙ্গে, আইপিএলের গুরুত্বপূর্ণ একটি ম্যাচে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের ক্রিকেটার টিম ডেভিড এবং দলের ব্যাটিং কোচ কাইরন পোলার্ডের বিরুদ্ধে নিষ্পাত করা হয়েছে। এই সাব্যস্তের কারণে তাঁরা কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম লঙ্ঘন করেছেন যা অন্যান্য টিম এবং ক্রিকেট কমিউনিটি দ্বারা গৌরবের বিষয়ে নিয়ে গবেষণা করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট অধিকারীদের জন্য এই সাব্যস্ত অবস্থানের জন্য সঠিক ব্যাপারটি পরিস্কার করা জরুরি, তাহলে আইপিএল এর সুনাম ও প্রেস্তিজ বজায় থাকবে।

গত ১৮ এপ্রিল, মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স পাঞ্জাব কিংসের বিপক্ষে হুমকির সাথে মাঠে নামে। ম্যাচের প্রথম ইনিংসে, মুম্বাই ব্যাটিং শুরুতে বিপর্যয়ের সামনে পড়ে। তবে, সূর্যকুমার যাদব এবং তিলক বর্মা দলের হাল ধরে তাদের ব্যাট দিয়ে দিক পাল্টেন। সূর্যকুমারের অসাধারণ ব্যাটিং থেকে মুম্বাই ৫৩ বলে ৭৮ রান স্কোর করে নেয়।

তারপরে, মুম্বাই প্রথম ইনিংসে ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৯২ রান সংগ্রহ করে নিয়েছে। এই রান তাড়া করতে নেমে পাঞ্জাব কিংস সঠিকভাবে ব্যাট করতে পারেনি। মুম্বাইর সংগ্রহকৃত রান তাদের জন্য অস্বীকৃতির কারণ হয়ে উঠে। ফলে, ম্যাচে মুম্বাই ৯ রানে দুরন্ত জয় তুলে নিয়েছে।

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ক্রিকেট দলের টুর্নামেন্টের আচরণবিধি লঙ্ঘনের জন্য অন্যতম ক্রিকেটার টিম ডেভিড এবং তার ব্যাটিং কোচ কাইরন পোলার্ডের প্রতি জরিমানা করা হয়েছে। বিসিসিআই অফিসিয়াল এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, “১৮ এপ্রিলে মুল্লানপুরে পাঞ্জাব কিংসের বিরুদ্ধে অবস্থিত হোক মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের আইপিএল ম্যাচে, টুর্নামেন্টের আচরণবিধি লঙ্ঘনের জন্য দুজনকে জরিমানা করা হয়েছে। এ নিয়ে সংশোধিত আচরণবিধি অনুসরণ করতে হবে।”

টিম ডেভিড এবং কাইরন পোলার্ডের জরিমানা হয়েছে কেনা উল্লেখযোগ্য ঘটনা হিসেবে। টুর্নামেন্টের অবস্থান মুল্লানপুর স্টেডিয়াম ছিল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের জন্য অধিক চ্যালেঞ্জিং। এই ঘটনার মাধ্যমে আশা করা হয়েছে যে প্রতিযোগিতা এর অনুষ্ঠান উন্নত ও নিরাপদ হবে।

এই ঘটনার পরিসরে, মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স টিম তাদের নিজস্ব প্রশাসনিক কাজের প্রতি সতর্ক হয়েছে। জরিমানা প্রত্যাশা একটি সতর্কতা চিহ্নিত করে যে প্রতিটি ক্রিকেটারের মনোযোগ আচরণবিধির প্রতি থাকা উচিত।

বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, “টিম ডেভিড এবং পোলার্ড আইপিএলের আচরণবিধির ধারা ২.২০ অধীনে একটি প্রথম পর্যায়ের অপরাধ করেছেন। এ জন্য তাদের প্রত্যেকেই তাদের নিজস্ব ম্যাচ ফি-এর ২০ শতাংশ জরিমানা করা হয়েছে। উভয় খেলোয়াড়ী অপরাধটি স্বীকার করেছেন এবং ম্যাচ রেফারির সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন।”

তবে, ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে জরিমানা করা হয়েছে কোন ঘটনার জন্য স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়নি। জরিমানাটি যে ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে এসেছে তা অস্পষ্ট রেখেছে।

ম্যাচ চলাকালীন, মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের ব্যাটসম্যান সূর্যকুমার যাদব এবং তিলক বর্মা ব্যাট করছিলেন ম্যাচের ১৫ তম ওভারে যখন আর্শদীপ সিং শেষ বলে একটি ওয়াইড ইয়র্কার করেন।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

BCCI মনে করে, বিদেশী আম্পায়ারদের সাথে সম্পর্ক স্থিতিশীল এবং প্রশাসনিক দিক থেকে সহযোগিতা জরুরি হতে পারে। তারা সাবধানে চিন্তিত হয়েছেন যে, বিদেশী আম্পায়ারদের অভিজ্ঞতা এবং ক্যাপাবিলিটি হতে পারে ভাল পারফরমেন্সের সুযোগ হারিয়ে যেতে পারে।

আম্পায়ারদের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন কোনোভাবেই খেলায় প্রভাবিত হবে না। তারা খেলায় ন্যায্যতা এবং নির্ভরযোগ্যতা নিশ্চিত করার জন্য তাদের কাজ অব্যাহত রাখবেন।

BCCI আম্পায়ারদের সিদ্ধান্ত বদলে নেওয়ার জন্য বিভিন্ন প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে পারে, যেমন সম্পর্কিত কমিটি গঠন করে এবং তাদের প্রতিবেদন অনুসরণ করে।

চাপ, পোলার্ড, এবং টিম ডেভিড প্রায়শ্চিত্তিক সুযোগ হারিয়ে যাবেন এবং তাদের অভিজ্ঞতা এবং ক্যাপাবিলিটি প্রভাবিত হতে পারে। BCCI তাদের অভিজ্ঞতা এবং দক্ষতা নিয়ে খেলার মান এবং ন্যায্যতা নিশ্চিত করার জন্য সর্বাধিক গ

উপসংহার

বিসিসি দ্বারা পোলার্ড ও টিম ডেভিডের বড় শাস্তি ঘোষণা দিয়েছে। তাদের বিপক্ষে সিদ্ধান্ত বদলে আনা হয়েছে, যা বাইরে থেকে বেশি চাপ পারিস্থিতিকী হতে পারে। এই ঘটনার মাধ্যমে বিসিসি তাদের দিকে একটি সমঝোতা আগ্রহী হয়েছে বলে ধারণা হচ্ছে। এই ঘটনাটি ক্রিকেটের প্রশাসনিক দিক থেকে সুস্থ রাখার জন্য গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে।

Leave a Comment