সমাজ ও পরিবেশের জন্য কাজ করতে চান, চলে এল বড় সুযোগ, ল্যাপটপ-ফোন সহ 50 লাখ টাকা পুরস্কার

স্যামসাং (Samsung) তাদের ‘সলভ ফর টুমোরো’ (Solve for Tomorrow) প্রকল্পটি ভারতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এবং এটি ইতিমধ্যে তৃতীয় বছরের অনুষ্ঠান পেল। এই প্রকল্পটির জন্য দ্য ফাউন্ডেশন ফর ইনোভেশন অ্যান্ড টেকনোলজি (FITT), আইআইটি দিল্লি (IIT Delhi), ভারতের বৈদ্যুতিন এবং তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রক এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সহযোগিতা প্রদান করছে। ‘সলভ ফর টুমোরো’ 2024 সম্মেলনটি তরুণ প্রজন্মের ভারতীয় উদ্যোগীদের মধ্যে আমলের উদ্বোধন করে, এটি উদ্ভাবনী চিন্তাভাবনা ও সমস্যা সমাধানের জন্য আগ্রহ তৈরি করার লক্ষ্যে তৈরি করা হয়েছে।

এই গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠানে স্যামসাংয়ের দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া শাখার প্রেসিডেন্ট ও সিইও, জেবি পার্ক, ইলেকট্রনিক্স এবং তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রকের সিনিয়র ডিরেক্টর ডাঃ সন্দীপ চ্যাটার্জি, এবং ভারতের জাতিসংঘের রেসিডেন্ট কোঅর্ডিনেটর শম্বি শার্প অংশ নিয়েছেন। এই প্রকল্পটি ভারতীয় তরুণদের উদ্যোগ এবং প্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হিসেবে কাজ করবে।

Samsung-এর ‘Solve for Tomorrow 2024’ প্রোগ্রামের সেকশন

এই বছরের সলভ ফর টুমোরো-এ দুটি নতুন ট্র্যাক প্রকাশিত হয়েছে – স্কুল ট্র্যাক এবং ইউথ ট্র্যাক। এই দুটি ট্র্যাক উভয়েই আলাদা আলাদা বিষয়বস্তুর উপর দৃষ্টিকোণ করে এবং স্বতন্ত্র ইউজার গ্রুপের জন্য তৈরি করা হয়েছে। স্কুল ট্র্যাকের প্রধান থিম হল ‘কমিউনিটি এবং ইনক্লুশন’। এই ট্র্যাক মোটামুটি 14 থেকে 17 বছরের শিক্ষার্থীদের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে এবং এটি সামাজিক অংশগ্রহণের মাধ্যমে বিভিন্ন সুবিধা নির্বাচন করা হয়েছে, যেমন বিভিন্ন অক্ষমতা থেকে আটক গেছে গোষ্ঠীদের ক্ষমতায়ন এবং স্বাস্থ্য সেবায় অংশ গ্রহণ করা। এটি একটি ‘সলভিং ফর ইন্ডিয়া’ প্রকল্পের অংশ।

অন্যদিকে, ইয়ুথ ট্র্যাক হল ‘সল্ভিং ফর দ্য ওয়ার্ল্ড’ প্রকল্পের একটি অংশ, যার প্রধান থিম হল ‘এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড সাস্টেনিবিলিটি’। এই ট্র্যাক বিশেষভাবে 18-22 বছরের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য তৈরি করা হয়েছে। এর মূল লক্ষ্য হল কার্বন ফুটপ্রিন্ট ন্যূনতম করা, পরিবেশ সংরক্ষণ করা এবং স্থায়ীত্ব উন্নয়নে মানুষের চেষ্টা করা।

উভয় ট্র্যাক একইভাবে গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রভাবশালী ক্ষেত্রে চালানো হচ্ছে, যা তাদের উদ্দেশ্যগুলি অনুসরণ করে।

কোন ব্যক্তি অংশগ্রহণ করতে পারে ‘Solve for Tomorrow 2024’ প্রতিযোগিতায়?

স্কুল ট্র্যাক এবং ইয়ুথ ট্র্যাক উভয় শিক্ষার্থী ও যুবক-যুবতীদের জন্য একটি জনপ্রিয় প্রতিযোগিতা। স্কুল ট্র্যাক তে 14 থেকে 17 বছর বয়সী শিক্ষার্থীরা প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারেন, যা তাদের একা অথবা পাঁচ জনের দলের সাথে অংশগ্রহণের সুযোগ প্রদান করে। ইয়ুথ ট্র্যাক এ 18 থেকে 22 বছর বয়সী যুবক-যুবতীদের জন্য অংশগ্রহণের সুযোগ রয়েছে, যা তাদের একা বা একজন ব্যক্তি বা একটি দলের সাথে প্রতিযোগিতা করতে দেয়।

প্রতিযোগিতা এই সাইটে আবেদনের মাধ্যমে প্রতিযোগিতার সুযোগ প্রাপ্ত করা যাচ্ছে। আগ্রহী শিক্ষার্থী ও যুবক-যুবতীরা প্রতিযোগিতা সাইটে www.samsung.com/in/solvefortomorrow-এ যোগ দিয়ে 31শে মে, বিকেল 5টা পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন। এখানে অনেক মজার প্রতিযোগিতা এবং উত্তোলন প্রদান হয়ে থাকে, যা তাদের নতুন ধারণা ও প্রজন্মের চিন্তা সামগ্রী গঠন করতে সাহায্য করে।

বিজয়ীদের জন্য কোন পুরস্কার প্রদান করা হবে?

স্কুল ট্র্যাকের দশজন সেমিফাইনালিস্টদের জন্য একটি স্পেশাল প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হবে যেখানে তাদের ইঞ্জিনিয়ারিং স্কিলস পরিষ্কার করার জন্য উদ্যোগ নেওয়া হবে। প্রতিটি সেমিফাইনালিস্টকে একটি প্রোটোটাইপ ডেভেলপমেন্টের জন্য 20,000 টাকা অনুদান প্রদান করা হবে এবং তাদের সাথে থাকবে Samsung Galaxy Tab ডিভাইস। সেইসাথে, পাঁচজন ফাইনালিস্টকে 1 লক্ষ টাকা অনুদান এবং Samsung Galaxy Watch প্রদান করা হবে। সবশেষে, বিজয়ীকে ‘কমিউনিটি চ্যাম্পিয়ন’ ঘোষিত করা হবে এবং তার জন্য 25 লক্ষ টাকা প্রদান করা হবে প্রোটোটাইপ ডেভেলপমেন্টের জন্য।

অন্যদিকে, ইয়ুথ ট্র্যাকের দশজন সেমিফাইনালিস্টদের জন্য বিশেষ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে যেখানে তাদের অধিকারগুলি পরিক্ষা করা হবে। সেমিফাইনালিস্টদের জন্য 20,000 টাকা অনুদান এবং গ্যালাক্সি ল্যাপটপ প্রদান করা হবে। পাঁচজন ফাইনালিস্টকে আরও প্রাইজ প্যাকেজ দেওয়া হবে যা প্রথম 1 লক্ষ টাকা অনুদান এবং Samsung Galaxy Z Flip স্মার্টফোন অন্তর্ভুক্ত। বিজয়ীকে ‘এনভায়রনমেন্ট চ্যাম্পিয়ন’ ঘোষিত করা হবে এবং তাকে সাথে দিল্লিতে ইনকিউবেশন এবং প্রোটোটাইপ ডেভেলপমেন্টের জন্য 50 লক্ষ টাকা অনুদান দেওয়া হবে।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

আপনি এই লটারিতে অংশ নিতে হলে, সংগঠনের ওয়েবসাইটে যাওয়া এবং অনুসরণ করা প্রক্রিয়া অনুসরণ করতে হবে। সাধারণভাবে, অনলাইন আবেদন ফর্ম পূরণ করে সমাজ ও পরিবেশে কি ধরণের কাজ আপনি করতে চান তা উল্লেখ করতে হবে।

সমাজ ও পরিবেশের জন্য কাজ করতে চান লটারির পুরস্কার জিতার সময়সীমা প্রতিষ্ঠানের নির্দিষ্ট নয়, কিন্তু সাধারণভাবে এটি একটি ক্যাম্পেইনের সংলগ্ন অংশ হিসেবে কাজ করে।

প্রতিষ্ঠান সামাজিক ও পরিবেশ সম্পর্কিত যে কোনো ধরণের কাজ স্বীকৃত করতে পারে, যেমন জনসাধারণের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা, পরিবেশ সংরক্ষণ, সামাজিক সেবা প্রদান ইত্যাদি।

সাধারণভাবে, এই লটারিতে অংশগ্রহণের জন্য কোনো প্রাক্তন প্রমাণপত্র প্রয়োজন হয় না, তবে নির্দিষ্ট ক্যাটাগরি বা কাজের জন্য প্রমাণপত্র প্রদান করতে হতে পারে।

উপসংহার

এই প্রতিযোগিতার মাধ্যমে লটারি সংবাদের বিজয়ীদের প্রাপ্ত অর্থ অত্যন্ত মূল্যবান এবং সমাজ ও পরিবেশে উত্তরাধিকারী সেবা সরবরাহ করতে সাহায্য করতে সক্ষম হবে। এই ধারাবাহিক সাহায্য সামাজিক ও পরিবেশ উন্নতির দিকে একটি অবশ্যই ধারণা তৈরি করবে।

আগামীকালে লটারি সংবাদ প্রতিযোগিতা এবং অন্যান্য সামাজিক প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম থেকে সংগ্রহিত ধন উত্তরাধিকারী সেবা উন্নতির পথে অগ্রসর হবে। সুযোগ প্রাপ্তি প্রাপ্তদের উপর তাদের ভূমিকা এবং দায়িত্ব অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হবে এবং এটি সুযোগ নিয়ে নিজেদের সমাজ ও পরিবেশের উন্নতির জন্য কাজ করার জন্য প্রেরিত করবে।

Leave a Comment