Pakistan Cricket: কেড়ে নেওয়া হয়েছিল নেতৃত্বের দায়িত্ব, এবার আফ্রিদি ফ্লপ খেতেই

Jacksons

Pakistan Cricket

ক্রিকেট বিশ্বে একটি বিশেষ ঘটনা ঘটতে চলেছে, যেখানে পাকিস্তানের টি-২০ দলের অধিনায়কের পদে পুরনো আংগুল বিশ্বকে চকিত করে দিতে পারে। শাহীন শাহ আফ্রিদির অধিনায়কত্বে পিসিবি দল, যা একেবারেই একটি নতুন দিশে মুখ করেছিল, বিশ্বের অগ্রগতির ক্ষেত্রে বিশ্বাস হারিয়েছে। এই পরিস্থিতির জেরে ক্রিকেট পরিচালকদের মনে হচ্ছে যে, একটি নতুন নেতৃত্বে পাকিস্তান দল উত্তরণ করতে পারে বা না, এটি দেখা যাবে শীঘ্রই।

Pakistan Cricket বিশ্বকাপের মধ্যে শাহীন শাহ আফ্রিদির পরিবর্তে অন্য কোনো খেলোয়াড়ের নেতৃত্বে পাকিস্তান দল পরিচালনা করতে নিয়ত হলেও, এটি কার্যকরী হতে পারে কিনা সেটি আগে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে না। এই ধারনার জন্য নিজেদের সম্পর্কে নিশ্চিততা অর্জন করা দরকার, যাতে দলের ক্রিকেটারদের ও তাদের অনুগতকারীদের মধ্যে সঙ্গতি ও সহযোগিতা বিজয়ী করতে সম্ভব হতে পারে। সাথে সাথে নতুন নেতৃত্বে দলের প্রস্তুতি ও আদর্শ নিশ্চিত করা দরকার যেন সবকিছু অনুকরণীয় হয়ে উঠে।

চলতি বছরের জুন মাসে আইসিসি টি-২০ বিশ্বকাপ (ICC T20 World Cup 2024) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে অনুষ্ঠিত হবে। এই বিশ্বকাপে সাক্ষাৎকারে পাকিস্তান দলে এক বড় বদল দেখতে পাচ্ছেন। আগেই কয়েকদিন আগে অবসর ভেঙ্গে টি-২০ বিশ্বকাপের আগে ফিরতে দেখা গেছে ইমাদ ওয়াশিম এবং মোহাম্মদ আমিরকে। এবার পাকিস্তান দলের অধিনায়কের বদলের সাক্ষী থাকতে চলেছে ক্রিকেটবিশ্ব।

গতবছর ভারতের মাটিতে বিশ্বকাপে খুব একটা ভালো জায়গায় শেষ না করায় তিন ফরম্যাট থেকেই অধিনায়ক পদ হিসাবে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল বাবর আজমকে (Babar Azam)। এই সময়ে বাবরের অধিনায়কত্বের দায় ভার কেড়ে নিয়ে টি-২০ ফরম্যাটে শাহীন শাহ আফ্রিদির (Shaheen Shah Afridi) উপর দিয়ে আশপাশের দায় ভার তুলে দেওয়া হয়েছিল। অন্যদিকে টেস্ট ফরম্যাটে অধিনায়কত্ব দেওয়া হয়েছে শান মাসুদকে।

বাবর আজম থেকে শাহীন শাহ আফ্রিদি উপর পর্যায়ে পরিবর্তন এটা পাকিস্তান ক্রিকেট দলের জন্য একটি নতুন পরিচয় নিশ্চিত করছে। এই বিশ্বকাপে তাদের অধিনায়কের ভূমিকা কে অবাক করবে তা দেখা মুখ্য ঘটনা হবে।

বিগত কিছু মাসে, শাহীন আফ্রিদির অধিনায়কত্বে বিশেষ সম্পাদকগণের কাছে প্রতিকূল মন্তব্যের বৃষ্টি পড়েছিল। তার উপর আস্থা হারানোর সাথে সাথে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (PCB) এগিয়ে আসছিলেন তার পরিস্থিতি অন্য কেউ না। তাদের চেষ্টা ছিল প্রতিষ্ঠিত প্রতিবেশী বড় নামদার ক্রিকেটার বাবর আজমকে আবারও দলের অধিনায়ক হিসেবে আনা। এটি পাকিস্তান দলের জন্য একটি বড় সিদ্ধান্ত যেটি পাকিস্তানী ক্রিকেট ফ্যানদের মধ্যে আন্তরিক আনন্দ এবং আশাবাদ উত্পন্ন করতে পারে।

বর্তমানে, পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের সূত্র অনুসারে, চেয়ারম্যান পদের পরিবর্তনের সাথে সাথে শাহীন আফ্রিদির টেস্ট এবং টি-২০ ফরম্যাটের অধিনায়কত্ব থেকে উত্তীর্ণ হয়েছিল। এখন তারা জাতীয় দলের জন্য নেতৃত্বের ক্ষমতার উপর বিশ্বাস হারানোর পরিস্থিতি উপলব্ধি করেছে। তাদের কাছে বাবর আজম ছাড়া অধিনায়কের পদে আর কোনো বিকল্প নেই। তাই, তারাই আশা করেন বাবর আজম টি-২০ বিশ্বকাপের জন্য নতুন অধিনায়ক হিসেবে নির্বাচিত হবেন এবং তার নেতৃত্বে দলটি সঠিক পথে নিয়ে যাবেন।

চিন্তা করা হচ্ছে যে, পাকিস্তান ক্রিকেট দলের বর্তমান পরিস্থিতি সঠিক নেতৃত্বের দ্বারা সমাধান করা যেতে পারে। এই দলের সফলতা এবং উন্নতির জন্য উচ্চমার্গের পথে পদবির বিনিময় প্রয়োজন। বাবর আজম একজন অভিজ্ঞ ক্রিকেটার এবং নেতা, এবং তার নেতৃত্বে দলটি পাকিস্তানের যাত্রা বেগ দেয়ার সঠিক উদাহরণ। তাই পিসিবি বাবর আজমকে টি-২০ বিশ্বকাপের জন্য নতুন অধিনায়ক হিসাবে দেখতে চান।

সচরাচর জিজ্ঞাস্য

আফ্রিদির ক্রিকেট জীবনে উচ্চ ও নিম্ন মুহূর্তের মূল্যায়ন করা যেতে পারে, কিন্তু একটি ফ্লপ খেতে সাধারণভাবে অবশ্যই অনেক কারণ থাকে, যেমন কোনও বিশেষ খেলা বা ফিজিক্যাল সমস্যা।

বাবর আজম পাকিস্তান ক্রিকেটের দলের অধিনায়ক হিসেবে প্রস্তুত হতে প্রস্তুত হচ্ছেন একাধিক দিক থেকে, যেমন দলের পরিস্থিতি, প্রতিষ্ঠানিতা, ও সাংবাদিকের প্রত্যাশা।

পাকিস্তানের ক্রিকেট দলের অধিনায়ক হিসেবে বাবর আজম থেকে প্রায়ই উচ্চ মানসম্পন্নতা এবং বিদ্যমান দল দ্বারা দলের কর্মক্ষমতা উত্তরদাতা হিসেবে প্রত্যাশা করা হয়।

বাবর আজমের নেতৃত্বে, পাকিস্তান ক্রিকেট দলের প্রদর্শনের প্রায়ই উন্নতি দেখা যেতে পারে, যদিও এটি দলের উচ্চ এবং নিয়মিত অনুশীলনের সাথে সংযোজিত।

উপসংহার

Pakistan Cricket: নেতৃত্বের দায়িত্ব কেড়ে নেওয়া হয়েছিল, এবার আফ্রিদি ফ্লপ খেতেই বিশ্বকাপে আবার অধিনায়ক বাবর

পাকিস্তান ক্রিকেটে, নেতৃত্বের প্রশ্নে প্রায় চারদশকের প্রায় অবশ্য রয়েছে। এই অবস্থানে বিশ্বকাপের জন্য বার্তা পাঠানোর দায়িত্ব উপার্জন করেছিলেন সাইকোলজিত তালেমদার। কিন্তু তার নির্বাচিত দল বিশ্বকাপে একটি বিপক্ষসী দলের হারের সঙ্গে শুরু হয়ে গেলে, তার অধিনায়কত্ব নির্ভীকভাবে প্রশ্নিত হতে থাকল।

তাই, এবারের বিশ্বকাপে পাকিস্তান যত্ন নেয়ার চেষ্টা করবে যেন আফ্রিদির ফ্লপের মতো কোন দুর্বলতা হয় না। পাকিস্তানি ফ্যানদের আবার আশা দেওয়ার জন্য, প্রশাসনিক দক্ষতা সহ তাদের সম্মানিত অধিনায়ক বাবর আজকের অধিনায়ক পদে ফিরে এসেছেন।

Leave a Comment